দেখুন কিভাবে Nid card online copy download করবেন

নতুন ভোটার হবার পর নির্বাচন কমিশন থেকে NID Card বিতরণের জন্য অপেক্ষায় না থেকে nid card online copy download করে ব্যবহার শুরু করুন। পুরাতন ভোটারগণ nid reissue আবেদন করার মাধ্যমে ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে পারবে।

নতুন আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করে ভোটার আইডি কার্ড কবে দিবে এই আশায় বসে থাকার প্রয়োজন নেই। প্রথমে অনলাইনে আইডি কার্ড চেক করে জেনে নিন আইডি কার্ডটি অনলাইন হয়েছে কিনা। তাছাড়া আইডি কার্ড প্রস্তুত হয়ে গেলে মোবাইলে এসএমএস চলে আসে।

নির্বাচন কমিশনের নাম্বার 105 থেকে SMS করে জানানো হোক কিংবা আপনি নিজে থেকেই আইডি কার্ড চেক করে জানুন না কেন, আইডি কার্ড অনলাইন হলে NID online copy download করতে পারবেন। আর সেটি ব্যবহার করে জাতীয় পরিচয়পত্রের যেকোনো কাজ করা যায়।

NID card online copy download করার নিয়ম

এনআইডি কার্ড অনলাইন কপি ডাউনলোড করার জন্য Bangladeshi national identity card ওয়েবসাইটে ভিজিট করে ফরম নাম্বার / ভোটার স্লিপ / আইডি কার্ডের নাম্বার এবং জন্মতারিখ দিয়ে অ্যাকাউন্ট রেজিস্টার করে নিন।অ্যাকাউন্ট তৈরি হয়ে গেলে ড্যাশবোর্ডের প্রোফাইল অপশনে থাকা ডাউনলোড করুন বাটন ক্লিক করে nid card online copy download করুন।

স্লিপ নাম্বার কিংবা আইডি নাম্বার দিয়ে একাউন্ট খোলার সময় সিকিউরিটি ক্যাপচা পূরণ করতে ভুলে গেলে চলবে না। সিকিউরিটি ক্যাপচাতে যা লেখা থাকবে সেটি হুবহু নিচের ঘরে টাইপ করে বসিয়ে দিতে হবে। সবশেষে সাবমিট বাটনে ক্লিক করলে NID একাউন্ট খোলা শুরু হবে।

অনলাইন থেকে আইডি কার্ড বের করার জন্য প্রয়োজন হবে জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার এবং জন্মতারিখ। অন্যদিকে যারা নতুন ভোটার হয়েছে তাদের ক্ষেত্রে নিবন্ধন স্লিপের নাম্বার অর্থাৎ ফরম নাম্বার এবং জন্ম নিবন্ধন প্রয়োজন হবে।

জাতীয় পরিচয় পত্র, পাসপোর্ট এবং জন্ম নিবন্ধন সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান এবং পরামর্শ জানতে আমাদের সোশ্যাল মিডিয়াতে যুক্ত থাকুন।

এনআইডি কার্ডের অনলাইন কপি বের করার নিয়ম

এনআইডি কার্ডের অনলাইন কপি আর নির্বাচন কমিশন থেকে দেয়া লেমেন্টিং ভোটার আইডি কার্ডের মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। যাদের EC (Election commission) থেক NID Card দিতে অনেক দেরি করছে তারা নিচের নিয়মে NID card online copy download করতে পারেন-

  1. services.nidw.gov.bd ওয়েব সাইট ভিজিট করুন
  2. স্লিপ নাম্বার/ জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বারর এবং জন্মতারিখ যাচাই করুন
  3. বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা বাচাই করুন
  4. মোবাইল নাম্বার যাচাই করুন
  5. NID wallet দিয়ে Face verification করুন
  6. NID প্রোফাইল থেকে অনলাইন কপি ডাউনলোড করুন

এখানে যদিও ৬টি ধাপ দেখানো হয়েছে অথচ এগুলো করতে আপনার ৫মিনিট সময়ও লাগবে না। চলুন তাহলে দেখে নেয়া যাক অনলাই থেকে কিভাবে NID Copy Download করতে হয়।

জাতীয় পরিচয়পত্র অনলাইন কপি ডাউনলোড pdf

NID Service ওয়েবসাইটে ভিজিট করে একাউন্ট রেজিস্টার করার জন্য আইডি কার্ডের নাম্বার এবং জন্মতারিখ লিখুন। তারপর ঠিকানা, মোবাইল নাম্বার এবং ফেস ভেরিফিকেশন শেষে প্রোফাইল থেকে nid card online copy download করুন।

একাউন্ট রেজিস্টার

Bangladesh NID Application System এ একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করার জন্য https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ এই লিংকে ভিজিট করুন। ফর্ম নাম্বার অথবা NID Number এর যে কোনটি এবং জন্ম তারিখ লিখুন। এখন সিকিউরিটি ক্যাপচা পূরণ করে সাবমিট বাটন চাপুন।

একাউন্ট রেজিস্টার

জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করার জন্য একাউন্ট রেজিস্টার করার বিস্তারিত নিয়ম জানতে আমাদের ইতঃপূর্বে প্রকাশিত NID Card Download online লেখাটি দেখতে পারেন।

ঠিকানা যাচাই

আইডি কার্ড আবেদন করার সময় আপনার বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা যা দেয়া ছিলো তা এখন যথাযথ বাছাই করতে হবে। সাধারণত জন্ম নিবন্ধন সনদে যে ঠিকানা দেয়া থাকে সেটাই আইডি কার্ড থাকে।

জাতীয় পরিচয় পত্র নিবন্ধন বা আবেদন করার সময় কোন ঠিকানা দিয়েছিলেন সেটি ভুলে যান তাহলে আপনার জন্মনিবন্ধনে যে ঠিকানা দেয়া আছে সেটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা যাচাই

মোবাইন নাম্বার যাচাই (OTP)

nid card অনলাইন কপি ডাউনলোড করার আগে আপনার মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন করতে হবে। নতুন ভোটার নিবন্ধন হওয়ার সনয় যে ফোন নাম্বার দিয়েছিলেন সেটির প্রথম এবং শেষের কিছু সংখ্যা দেখতে পাবেন।

এই নাম্বারটি আপনার কাছে সচল থাকলে মোবাইন নাম্বার যাচাই করার জন্য বার্তা পাঠান বাটনে চাপুন। আর যদি কোন কারণে ফোন নাম্বার হারিয়ে যায় বা বাদ হয়ে যায় তাহলে মোবাইল নাম্বার পরিবর্তন করতে পারবেন।

বার্তা পাঠানে ক্লিক করার পর আপনার ফোনে ৬ সংখ্যার OTP কোড পাঠানো হবে। এখন যাচাই করার জন্য সেই কোড বসিয়ে সাবমিট করুন বাটন চাপুন।

ফেস ভেরিফিকেশন (NID Wallet)

Face verification করার জন্য প্লে-স্টোর থেকে NID Wallet অ্যাপ ডাউনলোড করুন। ওয়েবসাইটে দেখানে QR code এনআইডি ওয়ালেট দিয়ে স্ক্যান করুন।

QR code স্ক্যান করা হয়ে গেলে ব্যক্তির ফেস রিকগনাইজেশন করার জন্য ক্যামেরা চালু হবে। এবার আইডি কার্ডের ব্যক্তিকে ক্যামেরার সামনে রেখে ডানে-বামে ঘুড়লেই ফেস ভেরিফিকেশন হয়ে যাবে।

এনআইডি ওয়ালেট এবং ফেস স্ক্যান সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য NID Wallet কি এবং এটি ব্যবহার করার নিয়ম জানতে পারেন।

NID card online copy download PDF

রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হবার পর আপনাকে আপনার এনআইডি একাউন্টের ড্যাশবোর্ডে নিয়ে যাবে। এখন আপনি আপনার প্রোফাইল পেজে আইডি কার্ডের নাম্বার, আপনার নাম, ছবি এবং বাবা মায়ের নাম দেখতে পাবেন।

এই ড্যাশবোর্ডের নিচের দিকে ডাউনলোড লেখা বাটনে ক্লিক করলে আপনার NID card online copy download PDF ফাইল আকারে ডাউনলোড হয়ে যাবে।

ভোটার আইডি কার্ডের অনলাইন কপিটি কোন কম্পিউটারের অথবা প্রিন্টের দোকান থেকে প্রিন্ট করে নিলেই অরজিনাল NID Card এর মতো যেকোন সরকারি এবং বেসরকারি কাজে ব্যবহার করতে পারবেন।

সংশোধন করুনআইডি কার্ড সংশোধন
পুরাতন আইডি কার্ড ডাউনলোডNID Card Re-Issue

FAQ’s

NID card online copy কি কি কাজে ব্যবহার করা যায়?

এন আইডি অনলাইন কপি SIM Card নিবন্ধিনে, ব্যাংক একাউন্ট খোলতে, করোনার টিকা নিবন্ধনে পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স সহ যেসব ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্রের প্রয়োজন হয় এমন সব কাজে NID card online copy ব্যবহার করা যায়। নির্বাচন কপিশন থেকে বিতরণ করা nid card আর ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করা এনআইডি অনলাইন কপির মধ্যে পার্থক্য নেই।

এনআইডি কার্ড অনলাইন কপি আর স্মার্ট কার্ড একই?

Smart NID Card হচ্ছে প্লাস্টিক দিয়ে তৈরি মাইক্রোচিপ বিশিষ্ট আইডি কার্ড। আর অনলাইন কপি হলো কাগজে ছাপানো সাধারন ভোটার আইডি কার্ড। তবে বর্তমানে এনআইডি কার্ড অনলাইন কপি আর স্মার্ট কার্ডের নাম্বার একই থাকে।

অনলাইন কপি ডাউনলোড না হওয়ার কারণ কি?

অনলাইন কপি ডাউনলোড না হওয়ার কয়েকটি কারণ থাকতে পারে, যারা অনেক আগে ভোটার হয়েছেন এবং নির্বাচন কমিশন থেকে আইডি কার্ড বিতরণ করা হয়েছে তাদের আইডি কার্ড অনলাইন থেকে ডাউনলোড করা যাবে না।

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

30 Comments

  1. আসসালামু আলাইকুম,, আমি অনলাইনে ই-পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করি। এখন তা আমাদের আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে জনা নেয় নি। তার কারণ হলো আমি আবেদন পত্রে আমার মা বাবার এনআইডি নাম্বার দি নাই,,এবং আমার জিমেইল দি নাই। এখন আমি এগুলা কিভাবে আবেদন পত্রে যুক্ত করবো?

    1. আবেদন বাতিল করার জন্য আবেদন করতে পারেন। অনলাইনে পেমেন্ট করে থাকলে সেটা বাতিল করে আবার করতে হবে। আর ব্যংক চালান করলে আগের টা ব্যবহার করে নতুন আবেদনের সাথে আগের চালান কপি ব্যবহার করতে পারবেন।

  2. আসসালামু আলাইকুম। আমি আমাদের ভারাটিয়া দের NID Card ও অনলাইম জ়ন্মনিবন্ধন এর মাধ্যমে তাদের পরিচয় , স্থায়ি ঠিকানা যাচাই করতে চাই । এমন অবস্থাই আমার কি করা দরকার ??