নতুন নিয়মে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করুন | NID Card Correction 2024

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করার নিয়ম ও অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করার পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনায় আপনাকে স্বাগতম। নিজে নিজে আইডি কার্ডের তথ্য পরিবর্তন (NID Card Correction) করার সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি ধাপে ধাপে সাজানো হয়েছে।

NID Card এর তথ্যে কোন প্রকার ভুল থাকলে তা জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করার মাধ্যমে সঠিক করে নেয়া যায়। ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করার নিয়ম জানা খুবই প্রয়োজন। জাতীয় পরিচয় পত্র আবেদন করার সময় ভুল তথ্য প্রদানের কারনে অথবা অপারেটরের ভুল টাইপিং করার ফলে আইডি কার্ডে ভুল চলে আসে।

জাতীয় পরিচয়পত্রের যেকোন ভুল এখন অনলাইনে সংশোধন আবেদনের মাধ্যমে পরিবর্তন করা যায়। জাতীয় পরিচয়পত্রের নিজের নামে ভুল হলে বা বাবা-মার নাম ভুল লিপিবদ্ধ হলে তা খুব সহজে সংশোধন করা যায়। জন্ম তারিখে ভুল থাকলে NID Card Correction Application করে সংশোধন করা যাবে।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করার জন্য মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে ভিজিট করুন services.nidw.gov.bd এই সরকারি ওয়েবসাইটে, জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার, জন্মতারিখ ব্যাবহার করে একাউন্ট রেজিস্টার করুন। মোবাইল নাম্বার যাচাই এবং ফেইস ভেরিফিকেশন করে nid website ড্যাশবোর্ড থেকে এডিট প্রোফাইলে ক্লিক করে প্রয়োজনীয় তথ্য সংশোধন করুন। সবশেষ সংশোধন ফি জমা দিয়ে অনলাইনে আবেদন জমা দিন।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন আবেদন জমা দেয়ার আগে খেয়াল রাখতে হবে যাতে চাহিত সংশোধনের জন্য প্রয়োজনীয় প্রমানপত্র আপলোড করতে হবে। আপনার ভোটার আবেদনে যে তথ্য পরিবর্তন করতে চান তা তার সত্যতা প্রমান করতে সত্যায়িত কাগজপত্র আবেদনের সাথে জমা দিতে হয়।

আইডি কার্ড সংশোধন আবেদন সামঞ্জস্য এবং বৈধ হলে সাধারনত ২৫ দিন থেকে ৩০ দিন এর মধ্যে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন আবেদন অনুমোদন পেয়ে যায়। তবে নির্বাচন চলাকালীন সময়ে এই অনুমোদনের সময়সীমা পরিবর্তন হতে পারে।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কি কি লাগে

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কি কি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে, তা নির্ভর করবে জাতীয় পরিচয়পত্রের কি ধরনের তথ্য পরিবর্তন করা হবে তার উপর। জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করতে প্রধানত শিক্ষাগত যোগ্যতা সনদ, অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ, ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং ই পাসপোর্ট এই ডকুমেন্ট গুলো ভোটার আইডি কার্ড সংশোধনে বেশি কার্যকর ভুমিকা পালন করে।

উপরে বর্ণিত মৌলিক ডকুমেন্ট গুলো না থাকলে বা কিছু কিছু ক্ষেত্রে এফিডেভিট (হলফনামা), নাগরিক সনদ, অয়ারিশ সনদ আপলোড করতে হয়। আইডি কার্ডে স্বামী কিংবা স্ত্রীর নাম সংশোধন (পরিবর্তন) করতে কাবিন নামার প্রয়োজন হয়।

তেমনি ভাবে জাতীয় পরিচয়পত্রে রক্তের গ্রুপ না দেয়া থাকলে তা যুক্ত করতে অথবা (পরিবর্তন) করতে মেডিক্যাল ক্লিনিক হতে রক্তের গ্রুপিং টেস্ট রিপোর্ট আপলোড করতে হয়। ঠিকানা সংশোধন করতে বিদ্যুৎ বিলের কাগজ বা ইউটিলিটি বিলের কাগজ জমা দিতে হবে।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করতে কি কি ডকুমেন্ট লাগে তা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কি কি লাগে এই লিখাটি পড়ুন।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত টাকা লাগে

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন বা জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করতে সর্বনিন্ম ২৩০টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩৪৫টাকা ফি প্রদান করতে হয়। আবেদনের ধরনের উপর সংশোধন ফি নির্ভর করে। ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন ৩টি প্রধান শ্রেণিতে বিভক্ত-

  • ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধন
  • অন্যান্য তথ্য
  • ঠিকানা পরিবর্তন

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন ফি কত তা একটি টেবিলে উপস্থাপন করা হলো

সংশোধনের ধরণ সংশোধন ফি
ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধন ২৩০ টাকা
অন্যান্য তথ্য সংশোধন ১১৫ টাকা
উভয় তথ্য সংশোধন ৩৭৫ টাকা
আইডি কার্ড রিইস্যু (Urgent)
আইডি কার্ড রিইস্যু (Regular) ২৩০ টাকা
জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফি তালিকা

এন আইডি কার্ডের সংশোধন ফি বিকাশ , রকেট ও নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ব্যাবহার করে পরিশোধ করা যায়। বিকাশে NID নাম্বার দিয়ে ভোটার আইডি সংশোধন ফি জমা দেয়া যায়।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করার নিয়ম

অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করার জন্য আপনাকে প্রথমে এনআইডি ওয়েবসাইটে আপনার NID Number, জন্ম তারিখ এবং একটি সিকিউরিটি ক্যাপচা পূরণ করে অ্যাকাউন্ট রেজিস্টার করতে হবে। তারপর ফেস ভেরিফিকেশন করে অ্যাকাউন্ট লগইন করুন। আপনার প্রোফাইলের এডিট বাটনে ক্লিক করে প্রয়োজনীয় তথ্য পরিবর্তন করে আবেদন জমা দিন।

সবার বুঝার সুবিধার জন্য বিষয়টি কয়েকটি ছোট ছোট ধাপে বিভক্ত করা হয়েছে। চলুন আইডি কার্ড সংশোধন করার পুরো প্রক্রিয়াটি ধাপে ধাপে দেখে নেই।

Step1: অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন

জাতীয় পরিচয় পত্র ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য প্রথমে ভিজিট করতে হবে https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ ওয়েবসাইটে। ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার, জন্ম তারিখ, ঠিকানা, মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন করে অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন একাউন্ট 
 রেজিস্ট্রেশন
NID BD অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন

ভোটার আইডি তথ্য প্রদান

অ্যাকাউন্ট তৈরির এই পর্যায়ে যার NID Card information change করতে চাচ্ছেন তার জাতীয় পরিচয়পত্রের নাম্বার, জন্মতারিখ দিয়ে ফরম ফিলাপ করতে হবে। এনআইডি কার্ডের নাম্বার জানা না থাকলে ভোটার স্লিপের ফরম নাম্বার ব্যাবহার করতে পারবেন।

ভোটার আইডি তথ্য দিয়ে ফরম পূরণ

জাতীয় পরিচয় পত্রের ঠিকানা যাচাই

ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য সঠিক ভাবে পূরণ করা হলে, এখন আপনাকে জাতীয় পরিচয় পত্রের ঠিকানা যাচাই করতে বলা হবে। ভোটার আইডি কার্ডের আবেদনে বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা যেমন দেয়া ছিলো ঠিক তেমন করে ঠিকানা দিতে হবে।

জাতীয় পরিচয় পত্রের ঠিকানা যাচাই

মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন

আইডি কার্ডে আপনার যে মোবাইল নাম্বার দেয়া ছিলো সেই নাম্বারটির প্রথমের কিছু সংখ্যা এবং শেষের ৩টি নাম্বার দেখানো হবে। এই মোবাইল নাম্বার আপনার কাছে থাকলে কোড পাঠানোর জন্য “বার্তা পাঠান” বাটনে চাপুন। আর ফোন নাম্বারটি না থাকলে নতুন একটি নাম্বার দিন।

আপনার মোবাইলে ৬ সংখ্যার ভেরিফিকেশন কোড চলে গেলে সেটি যাচাইকরন কোডের ঘরে বসিয়ে “বহাল” চাপুন। নাম্বার ভেরিফিকেশন হয়ে গেলে আপনাকে নিয়ে যাবে ফেস ভেরিফিকেশন করার জন্য।

Face Verification

অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশনের শেষ ধাপে NID Wallet App এর মাধ্যমে Face Verification করে প্রোফাইলে প্রবেশ করুন। ফেস ভেরিফিকেশন করতে ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত QR Code স্ক্যান করুন।

Nid wallet app face verification

NID wallet অ্যাপে ফেস স্ক্যান শুরু হলে যার ভোটার আইডি সংশোধন করা হবে তার মুখমণ্ডল ডানে বামে নাড়িয়ে একাউন্ট রেজিস্ট্রেশনের কাজ শেষ করতে হবে। এর মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই করা হয় যেন nid card এর আসল গ্রাহকই কেবল একাউন্ট এক্সেস করতে পারে।

Face Verification ধাপ শেষ হলে আপনার অ্যাকাউন্ট পাসওয়ার্ড সেট করতে বলা হবে। চাইলে পাসওয়ার্ড দিতে পারেন, আর না চাইলে এড়িয়ে যান। এখানে পাসওয়ার্ড দেয়ার সুবিধে হলো পরবর্তীতে আপনার অ্যাকাউনন্টে লগ-ইন করার সময় আবার ভেরিফিকেশন গুলো করার প্রয়োজন হয় না। জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড দিয়েই লগইন করা যায়।

Step2: ভোটার আইডি তথ্য সংশোধন

অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশনের ধাপটি সফলভাবে করতে পারলে এখন nid website এ লগইন অবস্থায় আছেন। হোম থেকে প্রোফাইল টেব এ চলে যান। জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ৩টি প্রধান ক্যাটাগরিতে বিভক্ত।

  • ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধন
  • ঠিকানা পরিবর্তন/সংশোধন
  • অন্যান্য তথ্য সংশোধন
ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধন

ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধন

ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধনের তালিকায় নিজের নাম (বাংলা এবং ইংরেজি), জন্ম তারিখ, পিতার মাতার নামের ভুল সংশোধন করাতে পারবেন। ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধনের অধিনে যে সকল তথ্য পরিবর্তন করা যায় তা হল

  • ব্যক্তির নিজের নাম (বাংলা)
  • ব্যক্তির নিজের নাম (English)
  • জন্ম তারিখ পরিবর্তন
  • জন্ম নিবন্ধন নাম্বার
  • লিঙ্গ
  • জন্মস্থান
  • পিতার নাম সংশোধন (বাংলা)
  • পিতার ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার
  • মায়ের নাম সংশোধন (বাংলা)
  • মায়ের ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার

এই তালিকায় থাকা এক বা একাধিক তথ্য পরিবর্তন বা সংশোধন করার জন্য ব্যক্তিগত তথ্য টেব থেকে “এডিট” বাটনে চাপতে হবে। আপনি যে তথ্য সংশোধন করতে চান তা বাছাই করুন।

আপনি যে তথ্যটি সংশোধন করতে চান, তার বাম পাশের টিক অপশনে ক্লিক করুন। এভাবে আপনার ভুল তথ্যগুলো প্রমাণপত্রের সাথে মিল রেখে সঠিকভাবে টাইপ করুন। তারপর, পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন। এখানে আপনার সংশোধন করা তথ্যের পূর্বরুপ ও সংশোধিত রুপ দেখতে পাবেন। সব ঠিক থাকলে আবারও পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন।

সংশোধনি তথ্য পুনঃযাচাই

আপনি যে সব তথ্য পরিবর্তন করতে চলেছেন তার একটি সামারি দেখাবে। এই ধাপে আওনার জাতীয় পরিচয় পত্রে আগে কি ছিলো এবং আপনার চাহিত সংশোধন তথ্যের একটি তালিকায় দেখাবে। এখন এটি চেক করে পরবর্তী বাটনে চাপুন।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করতে কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন হয় এবং কোন ধরনের পরিবর্তনের জন্য কি কাগজ আপলোড করতে হয় তা বিস্তারিত জানতে পারেন।

Step3: ট্রানজেকশন / ফি প্রদান

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের জন্য সরকারি ফি দিতে হয়। সংশোধন ফি সংশোধনের ধরণ অনুসারে ভিন্ন ভিন্ন হয়। প্রথম দিকেই ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন ফিসের একটি তালিকা প্রকাশ করেছি। তালিকা থেকে দেখে নিন আপনার পরিবর্তনের জন্য কত টাকা ফি দিতে হবে।

বর্তমানে সংশোধন ফি বিকাশ, রকেট ও নগদ একাউন্ট ব্যাবহার করে পরিশোধ করা যায়। আপনার কাছে যে মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট রয়েছে সেটি দিয়েই জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফি জমা দিতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফি জমা দেয়ার নিয়ম

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন ফি জমা দেয়ার জন্য যে কোন মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট থেকে সংশোধন ফি জমা দেয়া যায়। বিকাশ, রকেট এবং নগদ ব্যাবহার করে টাকা জমা দেয়া যায়। বাংলাদেশে বিকাশ একাউন্ট বেশি জনপ্রিয় হওয়ায়, বিকাশে ভোটার আইডি সংশোধন ফি জমা দেয়ার নিয়ন দেখানো হলো।

বিকাশে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফি পরিশোধ

বিকাশের মাধ্যমে NID Correction Fee দেয়ার জন্য প্রথমে বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করুন। বিকাশের ড্যাশবোর্ড থেকে পে বিল অপশন বাছাই করুন। তারপর সরকারি ফি থেকে NID Service সিলেক্ট করুন। আবেদনের ধরন এবং আইডি কার্ডের নাম্বার দিয়ে পেমেন্ট করুন।

বিকাশে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফি পরিশোধ

সংশোধনের ধরন বাছাই করলে বিকাশ অ্যাপ আপনাকে কত টাকা পেমেন্ট করতে হবে তা দেখাবে। আপনার বিকাশে পর্যাপ্ত টাকা থাকলে বিকাশের পিন দিয়ে পেমেন্ট করুন বাটনে চাপলে পেমেন্ট হয়ে যাবে। এখানে পেমেন্ট দেয়া হয়ে গেলে NID ওয়েবসাইটে আপনার একাউন্টে টাকা জমা হয়ে যাবে।

Step4: প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট আপলোড

আপনি আইডি কার্ডের যে তথ্য পরিবর্তনের জন্য আবেদন জমা দিতে চলেছেন, তা প্রমান করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্র আপলোড কতে হবে। ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধনের জন্য সবথেকে কার্যকর প্রমান হলো শিক্ষাগত যোজ্ঞতার সনদ, পাসপোর্ট কিংবা ড্রাইভিং লাইসেন্স। তার পাশাপাশি অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ আপলোড করতে হবে।

পিতা মাতার নামের বানান পরিবর্তন করতে হলে মা-বাবার আইডি কার্ডের স্ক্যান কপি এবং ভাই বোনের আইডি কার্ডের স্ক্যান কপি আপলোড করতে হয়। ঠিকানা পরিবর্তনের জন্য আবেদন করলে বিদ্যুৎ বিলের কাগজ বা যে কোন ইউটিলিটি বিলের কপি আপলোড করতে হয়।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন আবেদন সাবমিট হয়ে গেলে আপনি চাইলে সংশোধন ফরম ডাউনলোড করে রাখতে পারেন। আবেদন অনুমোদন হয়ে গেলে স্থানীয় নির্বাচন কমিশন অফিস থেকে আপনার সংশোধিত আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে এই আবেদন ফরমটি প্রয়োজন হতে পারে। তবে অনলাইনে জাতীয় পরিচয় পত্র ডাউনলোড করতে সংশোধন ফরম দরকার নেই।

Step5: সংশোধিত আইডি কার্ড ডাউনলোড

আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন আবেদন সফল ভাবে সাবমিট হলে এবং সাথে যথাযথ ডকুমেন্ট আপলোড দিলে সর্বোচ্চ ৪৫ দিনের মধ্যে আবেদন অনুমোদন হয়ে যায়। সচারাচর ৩ সপ্তাহের মধ্যেই সংশোধন আবেদন এপ্রোভ হয়ে যায়।

আপনার আবেদন অনুমোদন পেলে ফোনে মেসেজের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে। তারপর আপনি সেটি অনলাইন থেকে ডাউনলোড করে লেমেনেটিং করে ব্যাবহার করতে পারবেন। আপনি চাইলে আপনার সংশোধিত ভোটার আইডি কার্ড উপজিলা নির্বাচন কমিশন অফিস থেকে সংগ্রহ করতে পারেন।

ভোটার আইডি কার্ডের ঠিকানা পরিবর্তন

জাতীয় পরিচয় পত্রের ঠিকানা পরিবর্তন করার জন্য অনলাইনে আবেদন করা যায় না। ঠিকানা পরিবর্তন করার জন্য ভোটার এলাকা স্থানান্তর ফরম পূরণ করে নির্বাচন অফিসে জমা দিতে হয়। এই ঠিকানা পরিবর্তন ফরম কে ১৩ নং ফরম বলা হয়।

ভোটার এলাকা পরিবর্তনের যথার্থ কারণ ও প্রমাণ থাকলে সহজেই জাতীয় পরিচয় পত্রের ঠিকানা পরিবর্তন করা যায়। আগের ঠিকানায় কত সময় ধরে বসবাস করছেন, বর্তমানে যে এলাকায় ভোটার হস্থান্তর করছেন তার কারণ উল্লেখ করতে হয় আবেদন ফরমে।

ভোটার এলাকা পরিবর্তন ফরম pdf

অনলাইনে জাতীয় পরিচয় পত্রের প্রায় সকল তথ্য পরিবর্তন/সংশোধন করার অপশন থাকলেও ভোটার এলাকা পরিবর্তন করার বিষয়টি এখন অফলাইন ভিত্তিক রয়ে গেছে। ভোটার এলাকা পরিবর্তন করতে হলে Votar Area Migration Form পূরণ করে যে এলাকায় ভোটার হতে চান সে এলাকার নির্বাচন কমিশন অফিসে জমা দিতে হবে।

Migration Form পূরণ করে সাথে ভোটার এলাকা পরিপরতনের কারণ/প্রমানাধি নিয়ে স্থানীয় নির্বাচন অফিসে যেতে হবে। বাসস্থান পরিবর্তন বা চাকরির বদলির কারণে ভোটার এলাকা পরিবর্তন করতে চাইলে Job Posting Latter আবেদন ফরমের সাথে জমা দিতে হবে। আর বাসথান পরিবর্তনের কারণে ঠিকানা পরিবর্তন করতে চাইলে, বর্তমান ঠিকানার বিদ্যুৎ বিলের কাগজ বা যে কোন ইউটিলিটি বিলের কপি সাথে জমা দিতে হবে।

ভোটার আইডি কার্ড জন্ম তারিখ সংশোধন

জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্ম তারিখে ভুল থাকলে তা পরিবর্তন করার জন্য নির্বাচন ওয়েবসাইটের ভোটার আইডি পোর্টালে লগইন করুন। তারপর প্রোফাইল থেকে ব্যক্তিগত তথ্য অপশন থেকে এডিট বাটনে চেপে জন্ম তারিখের ঘরে টিক চিহ্ন দিয়ে, আপনার চাহিত জন্মতারিখ লিখুন।

সংশোধন ফি পরিশোধ করে আবেদন জমা দিন। ডকুমেন্ট আপলোড করার সময় আপনার চাহিত জন্ম তারিখ পমানিত হয় এমন প্রমাণপত্র জমা দিন। জন্ম তারিখ সংশোধন করতে বেশি কার্যকরি ডকুমেন্ট হলো SSC, HSC and JSC Board Certificate. শিক্ষাগত সনদ না থাকলে পাসপোর্ট কিংবা ড্রাইভিং লাইসেনস আপলোড দিলেও অনুমোদন পাওয়া যায়।

তবে যে ডকুমেন্টই প্রমাণ হিসেবে আপলোড করা হউক না কেন, আপনায়ে সংশোধন আবেদনের সাথে ডকুমেন্টের মিল থাকতে হবে। একটি উদাহরণ দিলে বিষয়টি আরো স্পষ্ট হয়ে যাবে…

ধরুন আপনার আইডি কার্ডে নাম ছিলো “কাবুল মিয়া” আর এখন তা সংশোধন করে “বাবুল মিয়া” করতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি এর প্রমাণ হিসেবে যে সনদ আপলোড করবেন সে সনদে নাম বাবুল মিয়া থাকতে হবে। প্রমাণ পত্রে এক রকম আপনি অন্যরকম করতে চাইলে এই আবেদন কাজে আসবে না।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করতে কত দিন লাগে

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন হয়ে রিইস্যু হতে আনুমানিক ৬০ দিন সময় লাগে। তবে এটি নির্ভর করে আবেদনের ধরণ ও ক্যাটাগরির উপর। অনলাইনে উপযুক্ত প্রমাণপত্র আপলোড করে সঠিকভাবে আবেদন করার পর ১৪ থেকে ২১ দিনের মধ্যেই আবেদন অনুমোদন হয়ে যায়।

তবে নির্বাচন চলাকালীন সময়ে এই সময়সীমা বেড়ে যেতে পারে। আবেদনে কোন জটিলতা দেখা দিলে অনুমোদন পেতে বিলম্ব হতে পারে। আবেদনের প্রমাণাদি পুনরায় ভেরিফিকেশন করার জন্য কিছু ক্ষেত্রে আরো ৪-৫ দিন সময় বেশি লাগতে পারে।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন সম্পর্কিত প্রশ্ন উত্তর

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন সম্পর্কে সচারাচর জিজ্ঞেসিত হয় এমন কিছু প্রশ্ন এবং তার উত্তর নিয়ে আলোচনা করা হলো। এখন পর্যন্ত আপনার মনে কোন প্রশ্ন ঘুরা ঘুরি করলে, নিচের প্রশ্ন উত্তর থেকে তার সমাধান পেয়ে যাবেন বলে আমার বিশ্বাস।

ভোটার আইডি কার্ড কতবার সংশোধন করা যায়?

আইডি কার্ড সংশোধনের কোন সীমা এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। তবে একত্ব তথ্য একবার পরিবর্তন করতে পারবেন। প্রথমবার তথ্য সংশোধনের জন্য ২৩০ টাকা, দ্বিতীয় বার(একবার যা সংশোধন হয়েছে তা ছাড়া) ৩৪৫টাকা এর পর প্রতিবার ৪৬০টাকা ফি দিতে হবে।

বাবা মায়ের নামে ভুল থাকলে সংশোধন করতে কি লাগে?

আপনার nid card এ পিতা মাতার নামে ভুল থাকলে তা পরিবর্তন করতে উপড়ে দেখানো নিয়মেই আবেদন করবেন। এখানে আবেদন জমা দেয়ায়ে আগে প্রমাণে ডকুমেন্ট হিসেবে আপনার বাবা-মায়ের জাতীয় পরিচয়পত্রের স্ক্যান কপি, ভাই বোনের আইডি কার্ডের স্ক্যান কপি আর আপনার কোন বোর্ড পরিক্ষার সনদ/ড্রাইভিং লাইসেন্স/ পাসপোর্ট স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত দিন লাগে?

সংশোধনের ধরন ও ক্যাটাগরির উপর নির্ভর করে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন অনুমোদন পেতে ৩০ থেকে ৪৫দিন সময় লাগে। আবেদনের সাথে আপলোড করা ডকুমেন্ট সামঞ্জস্য হোলে ১৫ থাকে ২১দিনের মধ্যেই তথ্য পরিবর্তন হয়ে যায়।

NID Card এর নাম সংশোধন করতে কি কি লাগে?

NID Card এর নাম সংশোধন করতে সবথেকে কার্যকরী ডকুমেন্ট যে কোন বোর্ড পরীক্ষার সনদ (JSC, SSC, HSC) পড়ালেখা না করলে তার ড্রাইভিং লাইসেন্স অথবা ই পাসপোর্ট। এগুলোর কিছুই না থাকলে বিয়ের কাবিন নামা দিয়ে আবেদন করতে হয়।

মোবাইল নাম্বার পরিবর্তন করবো কি করে?

আইডি কার্ডের মোবাইল নাম্বার পরিবর্তন করার জন্য NID Website এ রেজিস্ট্রেশন করার সময় ফোন নাম্বার ভেরিফিকেশন করতে OTP পাঠানো হয়। সে ধাপে মোবাইল পরিবর্তন করুন বাটনে চেপে আপনার নতুন মোবাইল নাম্বার দিলেই মোবাইল পরিবর্তন হওয়র যাবে।

স্মার্ট কার্ড সংশোধন ফি কত?

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করতে সর্বনিন্ম ২৩০টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩৪৫টাকা ফি প্রদান করতে হয়। আবেদনের ক্যাটাগরি ও ধরনের উপর সংশোধন ফি নির্ভর করে।

আইডি কার্ডের বয়স বাড়াবেন কি করে?

নিজের মন মতো ভোটার আইডি কার্ডের বয়স বাড়ানো বা কমানো যায় না। বয়স পরিবর্তনের স্বপক্ষে প্রমাণ থাকলেই কেবল জন্মতারিখ পরিবর্তন করা যায়।

স্মার্ট কার্ড কিভাবে সংশোধন করা যায়?

স্মার্ট কার্ড সংশোধন করার জন্য প্রথমে services.nidw.gov.bd ওয়েবসাইটে আপনার স্মার্ট কার্ড নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন। ফেইস ভেরিফিকেশন করে লগইন করুন। এবার প্রোফাইল অপশনে যান এবং এডিট লিংকে ক্লিক করে তথ্য সংশোধন করুন। সংশোধন ফি পরিশোধ ও প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্র আপলোড করে আবেদন জমা দিন। আবেদন অনুমোদন হলে তথ্য সংশোধন হবে।

কিভাবে এন আইডি কার্ডে রক্তের গ্রুপ যুক্ত/পরিবর্তন করব?

এনআইডি কার্ডে রক্তের গ্রুপ থাকা জরুরি। কোন জরুরি মুহূর্তে আইডি কার্ড দেখেই রক্তের গ্রুপ সম্পর্কে জানতে পারবে। আইডি কার্ডে রক্তের গ্রুপ যুক্ত / পরিবর্তন করতে স্বাস্থ্য ক্লিনিক থেকে Blood group Test Report আবেদনের সাথে জমা দিতে হবে।

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

106 Comments

  1. স্যার,
    01৭8211**14 এটা আমার নাঃ
    আমার আইডিকার্ডে সমস্যা আছে আমি সংশোধন করতে চাচ্ছি দয়া করে কল দিবেন

        1. আমার সব একাডেমিক সার্টিফিকেটসহ বার্থ সার্টিফিকেটে আম্মুর নামের শুরুতে মোছাঃ নেই, কিন্তু আম্মুর এনআইডি এবং জন্ম সনদে মোছাঃ শব্দটা আছে। আবার আব্বুর নাম আমি সবসময় J দিয়ে লিখে এসেছি, অথচ আব্বুর এনআইডি এবং জন্ম সনদে আছে G দিয়ে।
          এখন আমার এনআইডির প্রয়োজন পড়েছে। কি করা উচিৎ একটু বলবেন প্লিজ। এগুলো সংশোধন না করলেই কি নয়?!

          1. আপনি যদি এখন আপনার এনআইডি কার্ড এর সকল তথ্য আপনার বাব মায়ের তথ্যের সাথে মিল রেখে করতে চান সেক্ষেত্রে আপনার সকল একাডেমিক সার্টিফিকেট এর তথ্যও পরিবর্তন করতে হবে। যা খুবই কষ্টসাধ্য ও সময়সাপেক্ষ। আপনি নিশ্চিন্তে আপনার একাডেমিক সার্টিফিকেট অনুযায়ী আপনার এনআইডি কার্ড করকতে পারেন। এক কথায় আপনার সকল তথ্য সবজায়গায় একই থাকা বান্ছনীয়। নয়ত ভবিষ্যতে বিশেষ করে সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে ঝামেলা হতে পারে।

  2. আমার এনআইডি সংশোধন করতে দিছি আজ থেকে ৫ মাস আগে।আমি সকল ডকুমেন্টস ইস্যু করেছি।তারপরও এখনো পেন্ডিং দেখাচ্ছে।

  3. আসসালামু আলাইকুম স্যার আমার এনআইডিতে আমার বাবা, মা,এবং হাসবেন্ড এর নাম ভুল আমি এটা সংশোধন করতে চাই।
    বাট আমার জন্মনিব্নধন হারিয়ে গেছে, এখন নতুন করে জন্মনিব্নধন করতে হবে এবং আমার স্মার্ট কাডে যা আছে বাবা,মার নাম সেইম তা দিয়ে করতে হবে বাট আমার বাবার মার সাথে মিল করে করতে পারব না,এখন কি কনো সমস্যা হবে?
    যেমন,পিতার নাম সঠিক হলো মো: হোসেন মিয়া,
    মাতার নাম:নাছিমা বেগম।
    আমার এনআইডি তে পিতা:
    হোসেন
    মাতা:নাছিমা আক্তার।
    প্লিজ হেল্প করুন🙏

    1. মাতার নাম:তাসলিমা খাতুন।
      আমার এনআইডি তে পিতা:
      রহিজ্জল সেখ
      মাতা:ফাতেমা বেগম।
      প্লিজ হেল্প করুন🙏

      1. আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতু আমি আপনাদের সাথে কিছু কথা বলতে চাই আমার একটা এনআইডিতে সংশোধন করতে চাই কিভাবে করতে পারি আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারি

  4. জন্ম সাল 1990 থেকে 1999 সাথে পুরো নাম ,বাবার নাম ,নিজের স্বাক্ষর ফোন নাম্বার পরিবর্ত করা যাবে কি , আমার নতুন একাডেমিক সার্টিফিকেট আছে সেটা অনুযায়ী করতে চাচ্ছি ।

    1. আসসালামু আলাইকুম ভাই শিক্ষাগত যোগ্যতা ছাড়া আপনি কোন কাজ করতে পারবেন কিনা যেমন প্রবাসী প্রবাসে যাওয়ার জন্য বয়স বাড়াতে হবে ভাইয়া যদি পারেন একটু নক করেন 01763172924

  5. আমার আইডিটা কোন কোন ক্যাটাগরিতে পড়েছে তা ও বুঝতেছিনা,আমার সকল ডকুমেন্টস ঠিক ছিল।আমার টা কেন এমন করলো?

    1. আপনি আপনার উপজেলা নির্বাচন অফিসে যোগাযোগ করে দেখতে পারেন। অনেক সময় তদন্তের জন্য উপজেলা থেকে রিপোর্ট করতে বলে।

  6. স্যর ০১৬১০***৭৫৮০এটা আমার নাঃ
    আমার আইডিকার্ডে সমস্যা আছে আমি সংশোধন করতে চাচ্ছি দয়া করে কল দিবেন

    Reply

  7. jajakallahu khairan. vi….!! may allah bless you…!!
    এ রকম এন.আই ডি. তথ্য কেউ ভালোভাবে বুঝিয়ে দেয় নি…..!!
    অবিরাম আর্টিকেল লিখতে থাকুন। আপনার পাশে আছি সবসময়। ইনশাআল্লাহ……!!!

  8. আমি ভোটার আইডি কার্ডের নাম সংশোধন এর জন্য যাবতীয় কাগজপত্র উপজেলা নির্বাচন অফিসে জমা দিয়েছি কিন্তু নির্বাচন অফিস থেকে বলেছিল আমার ফোনে একটি মেসেজ আসবে । কিন্তু অনেকদিন গত হয়ে গেছে কোন মেসেজ আসেনি ।এ বিষয়ে যদি আপনারা দয়া করে একটু সাহায্য করতেন । নাম :মো: মতিয়ার রহমান
    উপজেলা /থানা : কালিগঞ্জ
    ভোটার আইডেন্টি কার্ড নাম্বার :6867837368

  9. ১. আমি সরকারি চাকরি করি। এসএসসি সার্টিফিকেটে “মোহাম্মদ” ছিলো। পরবর্তীতে এইচ,এস,সি ও ডিগ্রী-তে এমডি. হয়েছে, এন,আইডিতেও এমডি. আছে।
    ২. আবার পাসপোর্ট করার সময় “মোহাম্মদ” ছিলো বর্তমানে নবায়ন করতে গেলে এন,আইডি অনুসারে এমডি করে দিলো।
    —উপরোক্ত সমস্যাগুলো নিয়ে ঝামেলায় আছি
    কি করা উচিত, সঠিক পরামর্শ চাই।

  10. আমার জন্ম নিবন্ধন কার্ড এর নাম্বার এক রকম আর nid কার্ড করার সময় অন্য রকম
    জমা দিয়েছিলাম (যা ভুল ছিল) আবার ঐ ভুল জন্ম নিবন্ধন কার্ড দ্বারা পাসপোর্ট করা হয়েছে।এখন আমি কি আমার nid কার্ড এবং
    পাসপোর্ট সংশোধন করতে পারব

  11. আমার জন্ম নিবন্ধন কার্ড এর নাম্বার এক রকম আর nid কার্ড করার সময় অন্য রকম
    জমা দিয়েছিলাম (যা ভুল ছিল) আবার ঐ ভুল জন্ম নিবন্ধন কার্ড দ্বারা পাসপোর্ট করা হয়েছে।এখন আমি কি আমার nid কার্ড এবং
    পাসপোর্ট সংশোধন করতে পারব

    1. আমার নাম সমির ব্যাপারী।আমি জন্ম তারিখ সংশোধনের জন্য ২৪.০৭.২০২৩ তারিখে অন-লাইনে আবেদন করেছি। আমি একজন অসুস্থ রোগী। দুবছর আগে ইন্ডিয়ায় অপারেশন করিয়ে ছিলাম সে স্থানে এখন প্রচুর ব্যাথা।আমার পাসপোর্টের মেদ শেষ হওয়ায় রেনু করাতে পারি নি কারন আগের আইডেন্টিটি কাডের সাথে বর্তমান ডিজিটাল আইডেন্টিটি কাডের জন্ম তারিখ মিল নেই। আমার আর কত দিন অপেক্ষা করতে হবে

  12. ভাই আমার মায়ের নাম হবে মাফিয়া বেগম। কিন্তু আসছে শাফিয়া বেগম।৭/৮ মাস হয়ে গেছে অনলাইনে আবেদন করেছি।কিন্তু এখনো ঠিক হয় নাই।যথাযথ কাগজ পত্র ও দিয়েছি।এখন আমি কি করবো

      1. আবেদন কফি ও সমস্ত কাগজ পত্র নিয়ে উপজেলা গিয়েছিলাম। তারা বলল জেলা নির্বাচন অফিসে যাওয়ার জন্য। সেখানে গিয়ে কাগজ পত্র ও আবেদন কফি দিয়ে আসছি ১৬-১৭ দিন হইছে।এখনো কোনো এস এম এস আসেনি।এখন আমি কি করতে পারি

  13. আমার কার্ডের সবঠিক আছে শুধু নামের লাস্ট, “আমান উল্লাহ” ঠিক আছে,
    ইংলিশ , aman ullah
    কিন্তু আইডি কার্ডে এসেছে
    aman ullha
    এখন করনীয় কি?

      1. আচ্ছালামু আলাইকুম
        আমি শাহ আলম, আমার id বয়ষ
        ৭ বছর বেশি অথচ আমার সব ডকোমেনট, একাডেমীক, নিবন্ধন এমনকি Passport ও টিক, শুধু I’d কাডের বয়স বেশি, এবং আমি উপজেলা নির্বাচন কমিশনে ও গিয়েছি
        কিন্তু সমস্যা সমাধান হচ্ছে, এখন কি করবো, আমার নাম্বার,01712389114

  14. ASSALAMUALAIKUM, OTTONTO DUKKHER SATHE JANAITESI JE , UPOZILA ELECTION COMMISSION OFFICER POTHOME PORAMOSSOW DEI JE , ASHREAFUL ISLAM ER SOKOL VAI DER PARIBARIK SONOD POTRO BORTOMAN NID/ BIRTH CERTIFICATE ONUJAYI KORE DITE HOBE ,SHEI ONUJAYI KORE DEI, TARPOR KOYEKDIN POR BOLE APONADER JORMER KOMANUSARE KORE DITE, SHEI ONUJAYI ABAR JORMER KOMANUSARE KORE JOMA DIYESI. DUI BAR DUI ROKOM BOLSE DUI VABEI KORE JOMA DEYA ASE, JOTO KAGOS CHAISE SOB THIK MOTO JOMA DIYESI. PLEASE HOIRANI KORBEN NA.

  15. আমার ভোটার আইডি কার্ড সংশোধনের জন্য আবেদন করেছিলাম কয়েকদিন আগে। আজকে মেসেজ আসছে যে আগামী পরশুদিন আমার মুল ডকুমেন্টস নিয়ে নির্বাচন কমিশন অফিসে যেতে হবে। আমি এপ্লিকেশনের সময় সব ডকুমেন্টস সাবমিট করেছি।এখন আমি যদি অফিসে না যাই তাহলে কি আমার ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন হবে।কারন আমি এখন আমার এলাকার বাইরে আছি।

  16. আমার ভোটার আইডি কার্ড সংশোধনের জন্য আবেদন করেছিলাম কয়েকদিন আগে। আজকে মেসেজ আসছে যে আগামী পরশুদিন আমার মুল ডকুমেন্টস নিয়ে নির্বাচন কমিশন অফিসে যেতে হবে। আমি এপ্লিকেশনের সময় সব ডকুমেন্টস সাবমিট করেছি।এখন আমি যদি অফিসে না যাই তাহলে কি আমার ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন হবে।কারন আমি এখন আমার এলাকার বাইরে আছি। আমি যতদুর জানি যে সংশোধনের আবেদন করলে কোথাও যাওয়া লাগে ন। অটো আপডেট হয়ে যায়।

    1. কিছু কিছু ক্ষেত্রে ডকুমেন্টস ম্যানুয়ালি চেক করে। আমার মতামত আপনি আপনার চাহিত ডকুমেন্টস নিয়ে নির্বাচন কমিশন অফিসে চলে যান। তা না হলে আপনার আবেদন বাতিল করে দেয়া হবে। আপনি না যেতে পারলে কাছের কাউকে দিয়ে কাগজগুলো এবং আবেদন সামারি জমা দিন। এতে কাজ হলে ভালই। যদি না হয় তাইলে আপনাকেই আসতে হবে। নিয়মের বাহিরে আমরা কেউ নই। ধন্যবাদ NIDBD.org এর সাথে থাকার জন্য।

  17. আমার বাবা ও মায়ের আইডি কার্ড, এ বয়সের মাযে ভুল আছে, হাতের লেখা জন্ম নিম্নদন ও মেইন ভলিউম ও পাসপোর্ট এক, অনলাইন কপির মাযে বেশ কম, এখন কিভাবে ঠিক করবো বোজতাছি না। দয়াকরে একটু বলবেন।

  18. আমার বাবা ও মায়ের আইডি কার্ড, এ বয়সের মাযে ভুল আছে, হাতের লেখা জন্ম নিম্নদন ও মেইন ভলিউম ও পাসপোর্ট এক, অনলাইন কপির মাযে বেশ কম, এখন কিভাবে ঠিক করবো বোজতাছি না। দয়াকরে একটু বলবেন।
    মোবাইল নামবার, 01715977430

  19. আসসালামু আলাইকুম,
    স্যার আমার মায়ের নাম
    আমার আইডি কার্ডে ও মায়ের আইডি কার্ডে আমেনা বেগম।
    কিন্তু আমার শিক্ষাগত যোগ্যতার সকল প্রকার সার্টিফিকেটে Amila Begum
    আমি চাচ্ছি এখন আমার আইডি কার্ডে
    আমার মায়ের নাম Amena Begum
    এর স্থলে Amila Begum
    বানাতে,
    তা সম্ভব হবে কিনা দয়া করে জানাবেন স্যার।

  20. সার্টিফিকেটে বাবা মায়ের এক ধরনের নাম, আর আমার এনাইডি কার্ডে আরেক ধরনের নাম‌ । উদাহরণস্বরূপ – মায়ের নামের সাথে বেগম আছে, যা আমার ভোটার আইডি কার্ডের সাথেও আছে, কিন্তু সার্টিফিকেটগুলোতে বেগম নেই। বাবার নামের সাথে পদবী আছে, যা আমার ভোটার আইডিতেও নেই আর সার্টিফিকেটেও নেই‌। এখন আমি সব সার্টিফিকেট তো পরিবর্তন করতৈ পারবো না, আর বাবা মায়ের আইডি কার্ডের সাথে হুবহু মিল রেখে আমার আইডি কার্ডও করতে পারবো না। এখন কী করণীয়। সার্টিফিকেটে অনুযায়ী কী আমার ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করবো ?
    এতে পরবর্তীতে কোনো ঝামেলায় পড়তে হবে কিনা ?

  21. স্যার আমার পিতার নাম বাংলাতে লেখা ওয়াহেদ ইংরেজি লেখা wahad,,,,,, ইংরেজি বানান টা আমার কোন সমস্যা হবে দয়া করে জানাবেন