দুবাই থেকেই Smart NID Card পাবে প্রবাসী বাংলাদেশি

দুবাই কর্মরত বাংলাদেশি নাগরিক দুবাই থেকেই পাবে জাতীয় পরিচয় পত্র। দুবাইয়ের সংশ্লিষ্ট এম্বাসিতে স্মার্ট আইডি কার্ডের জন্য আবেদন এবং আঙ্গুলের ছাপ ও ছবি তোলতে হবে। ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য যাচাই বাছাই শেষে বাংলাদেশ থেকে Smart NID Card প্রস্তুত করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে দুবাই দূতাবাসে পাঠানো হবে।

দীর্ঘ দিন বিদেশে থাকার ফলে সময় মতো ভোটার হতে পারেনি অনেকেই। পরবর্তী সময়ে দেশে এসে নতুন ভোটার হতে চাইলে পরতে হয় বিপাকে। বেশি বয়সে জাতীয় পরিচয় পত্র আবেদন করতে আবেদনের সাথে জমা দিতে হয় অঙ্গিকারনাম।

বিদেশ থেকে নতুন ভোটার আবেদন
বিদেশ থেকে নতুন ভোটার আবেদন

প্রবাসীদের এই সকল ভোগান্তি দূর করতে ঈদ-উল-ফিতরের (রোজার ঈদ) পর সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটার নিবন্ধন সম্পন্ন করতে একটি পাইলট প্রকল্প চালু করবে নির্বাচন কমিশন। এই প্রকল্পের লক্ষ প্রবাসী বাংলাদেশি প্রত্যেক নাগরিকের হাতে হাতে স্মার্ট এন আইডি কার্ড পৌছে দেয়া।

UAE দূতাবাসে পাবে বাংলাদেশি Smart NID Card

যারা দুবাই প্রবাসী রয়েছে তারা সংশ্লিষ্ট দূতাবাসে এসে নতুন NID Card আবেদন করতে পারবে। তার পর সে আবেদন যাচাই বাছাই ও তদন্ত করে ভোটার হওয়ার আনুমোদন পেলে আবেদনকারীর হাতের ছাপ, ছবি, চোখের রেটিনা স্কেন ও প্রয়োজনীয় বায়োমেট্রিক তথ্য সংগ্রহের জন্য ডাকা হবে।

বাংলাদেশেই প্রস্তুত করা হবে প্রবাসীদের smart id card । আইডি কার্ড তৈরি হলে তাদের হাতে পৌছে দেয়ার জন্য বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে দুবাই দূতাবাসে পাঠিয়ে দিবে। তারপর সংশ্লিষ্ট এম্বাসি থেকে আবেদনকারী নিজে তার নিজ স্মার্ট আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে পারবে অথবা অনলাইনে থেকে ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করেও ব্যবহার করতে পারবে।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সচিব জাহাঙ্গীর আলম বলেন,

প্রত্যেক প্রবাসী নাগরিক সংশ্লিষ্ট দূতাবাসে এসে এন আইডির জন্য আবেদন করবেন। তারপর দেশে একটি স্থানীয় যাচাই এবং তদন্ত প্রক্রিয়া হবে। পরে দূতাবাসে আঙুলের ছাপসহ অন্যান্য তথ্য নেওয়া হবে। আইডি কার্ড তৈরি হয়ে গেলে সেগুলো পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে দূতাবাসে পাঠিয়ে দেয়া হবে।

তথ্য সূত্রঃ Dhaka Tribune

প্রবাসী ভোটার আবেদন করতে যা যা লাগবে

প্রবাসীদের নতুন ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করতে পাসপোর্ট, অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ, ভিসা কপি অথবা ওয়ার্ক পারমিট কাগজ প্রয়োজন হবে। তবে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ও প্রকল্প পরিচালক নাগরিকের সুবিধের কথা ভেবে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টে পরিবর্তন আনতে পারে।

বাংলাদেশ থেকে নতুন ভোটার হতে যে সকল ডকুমেন্ট প্রয়োজন অন্য দেশ থেকে ভোটার আইডি কার্ডের আবেদন করতে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস এর কিছুটা পার্থক্য রয়েছে। প্রবাসীদের ভোটার আবেদন করতে যা যা লাগবে–

  • পাসপোর্ট
  • জন্ম নিবন্ধন সনদের কপি
  • শিক্ষাগত যোজ্ঞতা সনদ
  • ভিসা কপি
  • ডাইভিং লাইসেন্স (যদি থাকে)
  • পিতা মাতার আইডি কার্ডের কপি

ভোটার আইডির আবেদন করার নিয়ম

নতুন ভোটার হওয়ার জন্য আপনাকে বাংলাদেশ এম্বাসিতে (দূতাবাস) যোগাযোগ করতে হবে। প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে নতুন ভোটার আবেদন করতে করতে হবে। পূর্বে কখনো ভোটার না হয়ে থাকলে এবং তথ্য যাচাই বাছাই সম্পূর্ণ হলে আবেদনকারীকে বায়োমেট্রিক তথ্য প্রদানের জন্য একটি তারিখ দেয়া হবে।

উক্ত তারিখে সংশ্লিষ্ট দূতাবাসে উপস্থিত হয়ে আঙ্গুলের ছাপ, চোখের রেটিনা, ছবি ও স্বাক্ষর দিয়ে আসতে হবে। এবার আপনার স্মার্ট আইডি কার্ড বাংলাদেশে প্রস্তুত করা হবে এবং আপনার জন্য আবার সেটি বিদেশে পাঠানো হবে।

আইডই কার্ড নির্ধারিত দূতাবাসে পৌছে গেলে আপনাকে Email অথবা মেসেজের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে। তখন আপনি আপনার Smart NID card সংগ্রহ করতে পারবেন।

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

One Comment