পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম | অনলাইনে ই পাসপোর্ট সংশোধনের আবেদন

পাসপোর্টের তথ্যে ভুল থাকলে অনলাইনে আবেদন করে পাসপোর্ট সংশোধন করা যায়। বর্তমানে NID Card এর তথ্য অনুসারে পাসপোর্ট সংশোধন করতে পারবেন। পাসপোর্টের তথ্য পরিবর্তন করতে কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন এবং ঘরে বসেই কিভাবে অনলাইনে পাসপোর্ট সংশোধন আবেদন করবেন এসব বিস্তারিত।

২০২২ সালের শেষের দিকে পাসপোর্ট সংশোধনের নতুন নিয়ম করা হয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিরাপত্তা ও বহিরাগম আনুবিভাগ প্রকাশিত ১৩ ডিসেম্বর ২০২২ পরিপত্র অনুসারে, জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্টের তথ্যে গরমিল থাকলে আইডি কার্ডের তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্ট সংশোধন করা যাবে।

পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম

পাসপোর্ট সংশোধন করার জন্য ePassport ওয়েবসাইটে একাউন্ট নিবন্ধন করতে হয়। তারপর নতুন ই পাসপোর্ট আবেদন করুন অপশন বাছাই করে পাসপোর্টের ধরন, ব্যক্তিগত তথ্য, ঠিকানা পূরণ করুন। ID Documents ধাপে পূর্বের পাসপোর্টের ধরণ এবং রিইস্যুর কারণ “DATA CHANGE” সেলেক্ট করে আবেদন করুন।

আপনার আগের পাসপোর্টের নাম্বার এবং প্রয়োজনীয় সঠিক তথ্য দিয়ে নতুন পাসপোর্টের আবেদন সম্পন্ন করুন। আবেদনের সময় মনে রাখবেন তথ্য যাতে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের সাথে মিল থাকে।

পাসপোর্ট সংশোধন

পাসপোর্ট সংশোধন করা আর অনলাইনে নতুন পাসপোর্টের জন্য আবেদন করার পদ্ধতি একই রকম। পার্থক্য শুধু আবেদনের Id documents এই ধাপে এসে। এই বিষয়টি খেয়াল রেখে বাকি প্রসেস নতুন ই পাসপোপোর্ট আবেদন করার নিয়মানুসারে করতে হয়।

অনলাইনে নতুন পাসপোর্ট আনবেদন করার নিয়ম সম্পর্কে NID BD তে একটি টিউটোরিয়াল প্রকাশ করা হয়েছে। ই পাসপোর্ট আবেদন এবং পাসপোর্ট রিইস্যু করার নিয়ম সম্পর্কে জানুন-

অনলাইনে ই পাসপোর্ট সংশোধনের আবেদন

পাসপোর্ট সংশধনের জন্য অনলাইনে ই পাসপোর্ট রি ইস্যু আবেদন করতে হয়। রিইস্যুর কারণ হিসেবে তথ্য পরিবর্তন (DATA CHANGE) অপশন সিলেক্ট করতে হয়। আগের পাসপোর্ট নাম্বার এবং বর্তমানে চাহিত সঠিক তথ্য দিয়ে আবেদন সম্পন্ন করতে হবে।

পূর্বের পাসপোর্ট সংশোধন করে যে নতুন তথ্য দিতে চাচ্ছেন তা অবশ্যই আপনার এনআইডি কার্ডের সাতে মিল থাকতে হবে। সংশোধিত তথ্যের সাথে আইডি কার্ডের তথ্যের মিল না থাকলে আবেদন বাতিল হয়ে যাবে।

পাসপোর্ট সংশোধন করতে যে সব ধাপ অনুসরণ করতে হয় তা পয়েন্ট আকারে উপস্থাপন করা হলো-

  • ইপাসপোর্ট ওয়েবসাইটে একাউন্ট নিবন্ধন।
  • NID Card / জন্ম নিবন্ধন অনুসারে সঠিক তথ্য প্রদান।
  • নতুন পাসপোর্টের আবেদন ফরম পুরন।
  • ID Documents ধাপে আগের পাসপোর্টের তথ্য এবং
  • রি ইস্যুর কারণ হিসেবে DATA CHANGE সিলেক্ট করুন।
  • পাসপোর্টের নির্ধারিত ফি পরিশোধ করুন।
  • অঙ্গিকারনামা লিখুন।
  • পুরাতন পাসপোর্ট এবং কাগজপত্র সহ আবেদনটি পাসপোর্ট অফিসে জমা দিন।

অনলাইনে পাসপোর্ট সংশোধন আবেদন সাবমিট করা হয়ে গেলে আবেদন ফরম এবং Application summery ডাউনলোড করে নিন। ব্যাংক গিয়ে অথবা ই চালানের মাধ্যমে পাসপোর্ট ফি জমা দিতে পারেন। ফি পরিশোধের চালান কপি সংগ্রহ করুন। ই পাসপোর্ট ফি কত এবং পাসপোর্ট সংশোধন করতে কত টাকা লাগে বিস্তারিত জানুন।

Passport Fee জমা দেয়ার পর আপনার Appointment Date অনুযায়ী সকল কাগজপত্র সাথে নিয়ে পাসপোর্ট অফিসে জমা দিন। তবে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের ক্ষেত্রে Appointment Date থাকবে না, সরকারি এবং সাপ্তাহিক বন্ধের দিন ব্যতিত যেকোন দিন আবেদন জমা দিতে পারবে।

তবে মনে রাখতে হবে আবেদন করার ৬মাসের মধ্যে পাসপোর্ট অফিসে সেটি জমা দিতে হবে, এই সময়ের মধ্যে আবেদন জমা না করলে সেটি বাতিল হয়ে যাবে। পরবর্তীতে আবার নতুন করে আবেদন করতে হয়।

পাসপোর্ট সংশোধন করতে যা যা লাগে

কি ধরেনের তথ্য পরিবর্তন হবে সেটির উপর নির্ভর করবে পাসপোর্ট সংশোধন করতে কি কি ডকুমেন্টস লাগবে। এক্পটি পাসপোর্টের তথে ভুল থাকলে তা পরিবর্তনণ করতে সাধারণত যা যা কাগজপত্র লাগে তা লিস্ট আকারে উপস্থাপন করা হলো-

  • জাতীয় পরিচয়পত্র বা National ID Card
  • অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ ( অপ্রাপ্ত বয়স্ক )
  • পুরাতন পাসপোর্ট ও পাসপোর্ট কপি।
  • অঙ্গীকার নামা।
  • লিখিত আবেদন।

পাসপোর্টে পিতা মাতার নামে ভুল থাকলে আবেদনের সাথে পিতা মাতার আইডি কার্ডের ফটো কপি যুক্ত করতে হবে।

পাসপোর্টে জন্ম তারিখ সংশোধন

পাসপোর্টের জন্ম তারিখ সংশোধন করার জন্য NID Card প্রয়োজন। আপনার আইডি কার্ড সাথে রাখবেন এবং ফটো কপি করে নিবেন। আপনি চাইলে অতিরিক্ত হিসেবে আপনার বোর্ড পরিক্ষার সার্টিফিকেট যেমনঃ JSC / SSC / HSC অথবা সমমান পরিক্ষার সনদ আবেদনের সাথে জমা দিতে পারেন।

পাসপোর্ট সংশোধনি নতুন নিয়ম অনুসারে জাতীয় পরিচয়পত্র তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্টের তথ্য পরিবর্তন করে নতুন ইপাসপোর্ট করতে পারবে। তাই বলা যায় শুধু মাত্র আইডি কার্ড থাকলেও জন্ম তারিখ সংশোধন করা যাবে।

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।